1. marufhassain@gmail.com : admin :

September 22, 2021, 1:04 pm

শিরোনামঃ
বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই কৃষিতে বিস্ময়কর সাফল্য এসেছে-কৃষিমন্ত্রী রাজশাহীতে বেড়েছে পাট চাষ ঝালকাঠিতে কাজি পেয়ারার বাম্পার ফলন এফবিসিসিআইয়ের ম্যাধ্যমে আপনাদের কী ধরনের সহায়তা প্রয়োজন, সেগুলো জানাবেন। আমরা সেগুলো সুপারিশ করব।’-কৃষিমন্ত্রী পদ্মার চরে কলা চাষে চমকে দিলেন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান দেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল: কৃষিমন্ত্রী কৃষিকে লাভজনক করতে কৃষিবান্ধব নীতি বাস্তবায়ন করছে সরকার-কৃষিমন্ত্রী কৃষি মন্ত্রণালয়ের এডিপি বাস্তবায়ন হার ৯৮ শতাংশ উন্নয়নশীল দেশের খাদ্যচক্রে জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব: কৃষিমন্ত্রী বাড়ছে ছাদ বাগান ও ছাদ কৃষির আগ্রহ
নওগাঁর নাক ফজলি আম স্বাদে গুণে অনন্য

নওগাঁর নাক ফজলি আম স্বাদে গুণে অনন্য

অতুলনীয় স্বাদ আর পুষ্টিগুণে আম প্রায় সবার কাছেই প্রিয় ফল। ল্যাংড়া, গোপালভোগ, আম্রপালি, ক্ষীরশাপাত, বারি-৪ ও গুটি জাতের আমের জন্য বাংলাদেশের বিখ্যাত জেলা হচ্ছে নওগাঁ। সম্প্রতি খ্যাতি পেয়েছে এ জেলার বদলগাছী উপজেলার নাক ফজলি আমও।

কিন্তু নাক ফজলি আম নওগাঁর বদলগাছীতে কীভাবে এলো প্রথম চারা কে নিয়ে আসেন, এটা আজও সবার অজানা।নাক ফজলি আম নিয়ে জেলায় আছে নানা কাহিনি। কথিত আছে, নওগাঁর বদলগাছী ভান্ডারপুরের জমিদার বিনোদ কুমার লাহিড়ীর হাত ধরে নাক ফজলি নামে পরিচিতি পায় আমটি।কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর ও আম চাষিরা জানায়, এই আমের আসল নাম হচ্ছে ‘নাক’ ফজলি। গঙ্গা তীরবর্তী কাশী বা বেনারস ভারতের প্রধান আম উৎপাদন এলাকাগুলোর মধ্যে অন্যতম। বিনোদ কুমার লাহিড়ীর মাধ্যমে বদলগাছী উপজেলায় প্রথম বিস্তার লাভ করে নাক ফজলি। অনেকে মনে করেন, এ আমের নিচের দিকে নাকের মতো চ্যাপ্টা হওয়ায় এর নামকরণ হয় নাক ফজলি। জোড় কলমের মাধ্যমে এ আমের চারা রোপণ করার ১ থেকে ২ বছরের মধ্যে গাছে মুকুল আসে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তৎকালীন ইংরেজ শাসক লর্ড লিটন ছিলেন বাংলার গভর্নর (১৯২২-১৯২৭) এবং স্বল্প সময়ের জন্য ভারতের অস্থায়ী ভাইসরয়। তার আমলে এ অঞ্চলে জমিদারি প্রথা চালু ছিল। নওগাঁর বদলগাছী উপজেলার ভান্ডারপুরে বিনোদ কুমার লাহিড়ী পরিবারের জমিদারি অঞ্চল ছিল। প্রতি বছর জমিদার বিনোদ কুমার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে তীর্থে যেতেন ভারতে। ফেরার পথে সঙ্গে নানা ধরনের ফলদ গাছের চারা নিয়ে আসতেন। যেমন কাশি ফজলি, বোম্বে ফজলি, দেবীভোগ, মালদা ফজলি ও নাক ফজলি। যে এলাকা থেকে চারা নিয়ে আসতেন, সেই এলাকার নাম দিয়ে নামকরণ করতেন তিনি।

এরপর থেকেই নাক ফজলি আম কলমের চারার মাধ্যমে আশপাশের গ্রামগুলোয় ছড়িয়ে যেতে থাকে। এভাবেই আমটি পরিচিতি পায় ভান্ডারপুর গ্রামের বাইরে। নওগাঁর দুবলহাটি ও বলিহার রাজবাড়ির বাগানেও এ আমের গাছ ছিল বলে জানা যায়। নওগাঁর বদলগাছী, ধামইরহাট, সদর, রানীনগর ও মহাদেবপুর উপজেলায় নাক ফজলি আমের চাষ হচ্ছে ব্যাপকভাবে। বদলগাছী থানার শ্রীরামপুর, দেউকুড়ী, কোলা, ভান্ডারপুর, দ্বীপগঞ্জ ও দুধকুরি গ্রামে এ আমের অসংখ্য বাগান গড়ে উঠেছে।

জমিদার বিনোদ কুমার লাহিড়ীর উত্তরসূরি নাতি নিরঞ্জন লাহিড়ী বলেন, আমার দাদু বিনোদ কুমার লাহিড়ী বহুকাল আগে তীর্থভূমি কাশীতে গিয়েছিলেন। ফেরার পথে মুর্শিদাবাদের নবাবের বিখ্যাত আমবাগানে উদ্ভাবিত অতি উৎকৃষ্ট জাতের আম নাক ফজলি আমের কয়েকটি চারা বাংলাদেশে প্রথম এনেছিলেন। দাদু কয়েকটি নাক ফজলি আমের চারা সংগ্রহ করে ভান্ডারপুরে নিজস্ব আম বাগানে রোপণ করেন।

তিনি বলেন, এখনো অনেকেই এই আমের খোঁজখবর নিতে আমাদের কাছে আসেন। ভারত থেকে আনা ফলের চারাগুলো এখনো সে প্রজন্মের স্মৃতি হয়ে রয়েছে তাদের পরিবারে।

ভান্ডারপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহীনূর ইসলাম স্বপন জানান, নাক ফজলি আম এ অঞ্চলের মাটির কারণে ফলন ভালো ও সুস্বাদু হয়। প্রতি মৌসুমে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ব্যবসায়ীরা ভান্ডারপুর হাট থেকে আম কিনে নিয়ে যান। বর্তমানে নাক ফজলি আমের জন্য ভান্ডারপুর বিখ্যাত এলাকা।

স্থানীয় বয়োজ্যেষ্ঠ আবদুল মান্নান জানান, ১৯৪৭ সালে দেশভাগের সময় বিনোদ কুমার লাহিড়ী এ দেশ থেকে সপরিবার ভারতে চলে যান। আমার দাদা তার কলকাতার সম্পত্তি বিনোদ কুমারের সঙ্গে বিনিময় করায় এই জমিগুলো আমরা পাই। তার এখনো ৫ শতাংশ জমি রয়েছে এ দেশে। যেখানে তার উত্তরসূরিরা বাস করছেন। তাদের সেই জমিদারি আর নেই। এখন কৃষিকাজ করে চলেন উত্তরসূরিরা।

তিনি বলেন, জমিদার ভ্রমণপিপাসু মানুষ ছিলেন। পৃথিবীর যেই প্রান্তে ঘুরতে যেতেন, ফেরার পথে বিভিন্ন জাতের ফলদ বৃক্ষ নিয়ে আসতেন। তার মধ্য জনপ্রিয়তা পায় এই নাক ফজলি আম। এই আম এই মাটির জন্য প্রসিদ্ধ।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক ছামসুল ওদাদুদ জানান, নাক ফজলি এ অঞ্চলে খুবই জনপ্রিয়। গাছ পাকা নাক ফজলির ঘ্রাণ জন্ম দেয় অসাধারণ এক অনুভূতির। এ আমের আরেকটি বিশেষত্ব একটু শক্ত হওয়ার কারণে পচে না সহজে। গাছ থেকে নামানো নাক ফজলি দীর্ঘদিন ধরে ঘরে রেখে খাওয়া যায়। নাক ফজলি আম লম্বায় প্রায় চার ইঞ্চি আর চওড়ায় দেড় ইঞ্চি হয়ে থাকে। এর নিম্নাংশ বাঁকানো। নাক বড় এবং স্পষ্ট বেরিয়ে আসা। আমটির গড় ওজন ৩০০ গ্রাম। আকারে অনেকটা বড় এবং নাক স্পষ্ট, এ কারণে এর নাম হয়েছে নাক ফজলি। নাক ফজলি শুধু নওগাঁ জেলায় পাওয়া যায়। সুত্রঃ বিডি প্রতিদিন

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




Design & Developed BY Md. Maruf Hossain